তামিম আহমেদ
তামিম আহমেদ
8 Aug 2023 (8 months ago)
আড়াইহাজার, নারায়ণগঞ্জ, ঢাকা, বাংলাদেশ

গান রচনা করার জন্য 7 টিপস।


Listen to this article

আমি আপনার নিজের গান রচনা করার জন্য কিছু সাধারণ টিপস দিতে পারি:

  1. অনুপ্রেরণা খুঁজুন : অনুপ্রেরণা যে কোনো জায়গা থেকে আসতে পারে – একটি ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা, একটি বই, একটি চলচ্চিত্র, এমনকি শুধুমাত্র একটি অনুভূতি। একটি খোলা মন রাখুন এবং আপনার সৃজনশীলতা প্রবাহিত হতে দিন।
  2. বিভিন্ন সুরের সাথে পরীক্ষা করুন : যতক্ষণ না আপনি আপনার পছন্দের একটি খুঁজে না পান ততক্ষণ বিভিন্ন জ্যা অগ্রগতি এবং সুরের সাথে খেলুন। নতুন এবং অনন্য কিছু চেষ্টা করতে ভয় পাবেন না।
  3. আপনার সাথে অনুরণিত হয় এমন গান লিখুন : আপনার গানের কথা যেন একটি গল্প বলে এবং আবেগ জাগিয়ে তোলে। আপনার কাছে অর্থপূর্ণ এমন কিছু সম্পর্কে লিখুন এবং আপনার কথার মাধ্যমে সেই আবেগটি প্রকাশ করার চেষ্টা করুন।
  4. এটি সহজ রাখুন : কখনও কখনও কম বেশি হয়। একটি গানের মধ্যে অনেকগুলি ধারণা তৈরি করার চেষ্টা করবেন না। কয়েকটি মূল থিম এবং ধারণাগুলিতে লেগে থাকুন এবং সেগুলির চারপাশে আপনার গান তৈরি করুন।
  5. অনুশীলন, অনুশীলন, অনুশীলন : অন্য যে কোনও দক্ষতার মতো, গান লেখারও অনুশীলন লাগে। আপনি যত বেশি লিখবেন, আপনি তত ভাল হয়ে উঠবেন।
  6. অন্যান্য সঙ্গীতজ্ঞদের সাথে সহযোগিতা করুন : অন্যান্য সঙ্গীতজ্ঞদের সাথে সহযোগিতা আপনার কাজে নতুন ধারণা এবং দৃষ্টিভঙ্গি আনতে পারে। আপনি অন্যদের কাছ থেকে অনেক কিছু শিখতে পারেন এবং তাদের ধারণাগুলিকে আপনার নিজের কাজে যুক্ত করতে পারেন।
  7. আপনার ধারনাগুলো রেকর্ড করুন : আপনার সঙ্গীতের ধারনাগুলি আপনার কাছে আসার সাথে সাথে রেকর্ড করার জন্য একটি রেকর্ডিং ডিভাইস বা অ্যাপ সবসময় হাতে রাখুন। আপনি কখনই জানেন না যে অনুপ্রেরণা কখন আঘাত করবে এবং আপনি একটি দুর্দান্ত ধারণা হারাতে চান না।

মনে রাখবেন, গান লেখা একটি প্রক্রিয়া এবং আপনার দক্ষতা বিকাশ করতে সময় এবং অনুশীলন লাগে। নিজের উপর খুব কঠিন হবেন না এবং ভ্রমণ উপভোগ করুন।

অনুপ্রেরণা খুঁজুন

অনুপ্রেরণা খোঁজা বিভিন্ন উত্স থেকে আসতে পারে। এখানে গান লেখার জন্য অনুপ্রেরণা খোঁজার কিছু উপায় রয়েছে:

  1. ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা : আপনার নিজের অভিজ্ঞতা, চিন্তাভাবনা এবং অনুভূতি সম্পর্কে লিখুন। আপনি অনন্য এবং ব্যক্তিগত কিছু তৈরি করতে আপনার নিজের জীবনের ঘটনা এবং আবেগ আঁকতে পারেন।
  2. অন্যান্য সঙ্গীত : বিভিন্ন ধারা এবং শিল্পীদের থেকে সঙ্গীত শুনুন। গানের সুর, কথা এবং সামগ্রিক কাঠামোর দিকে মনোযোগ দিন। আপনি একটি নির্দিষ্ট যন্ত্রের শব্দ থেকে অনুপ্রেরণা পেতে পারেন বা একটি নির্দিষ্ট জ্যার অগ্রগতি আপনাকে অনুভব করে।
  3. প্রকৃতি : প্রাকৃতিক বিশ্ব অনুপ্রেরণার একটি বড় উৎস হতে পারে। পার্কে হাঁটুন, পাহাড়ে হাইক করুন বা বাইরে বসে আপনার চারপাশের পৃথিবী পর্যবেক্ষণ করুন। প্রকৃতির সৌন্দর্য এবং শক্তি সম্পর্কে লিখুন বা এটি আপনার নিজের আবেগ এবং অভিজ্ঞতার রূপক হিসাবে ব্যবহার করুন।
  4. শিল্প ও সাহিত্য : কবিতা, চিত্রকলা এবং বইয়ের মতো শিল্প ও সাহিত্যের বিভিন্ন রূপ অন্বেষণ করুন। এই কাজগুলিতে ব্যবহৃত থিম এবং চিত্রগুলিতে মনোযোগ দিন এবং আপনার নিজের গান লেখার জন্য একটি জাম্পিং অফ পয়েন্ট হিসাবে ব্যবহার করুন।
  5. কথোপকথন : অন্যদের সাথে কথোপকথন করুন এবং তাদের গল্প এবং দৃষ্টিভঙ্গি শুনুন। আপনি অন্যদের অভিজ্ঞতা থেকে অনুপ্রেরণা পেতে পারেন এবং আপনার নিজের গান তৈরি করতে সেই গল্পগুলি ব্যবহার করতে পারেন।

মনে রাখবেন, অনুপ্রেরণা যে কোন জায়গা থেকে আসতে পারে। একটি খোলা মন রাখুন এবং আপনার চারপাশের বিশ্বের কাছে গ্রহণযোগ্য হন। আপনি যত বেশি পর্যবেক্ষণ এবং অভিজ্ঞতা অর্জন করবেন, আপনার গান লেখার জন্য আপনার কাছে তত বেশি ধারণা থাকবে।

বিভিন্ন সুর সঙ্গে পরীক্ষা

বিভিন্ন সুরের সাথে পরীক্ষা করা গান রচনা প্রক্রিয়ার একটি অপরিহার্য অংশ। বিভিন্ন সুর নিয়ে আসার জন্য এখানে কিছু টিপস রয়েছে:

  1. গুনগুন বা গান গাও : মনে আসে এমন একটি সুর গুনগুন বা গাইতে শুরু করুন। আপনার কাছে কোনটি ভাল লাগছে তা দেখতে বিভিন্ন ছন্দ, পিচ এবং ব্যবধান ব্যবহার করে দেখুন।
  2. কর্ডের অগ্রগতির সাথে চারপাশে খেলুন : একটি গিটার বা কীবোর্ডে বিভিন্ন জ্যা অগ্রগতির সাথে পরীক্ষা করুন। এটি আপনাকে কর্ডের সাথে মানানসই বিভিন্ন সুর নিয়ে আসতে সাহায্য করতে পারে।
  3. একটি মেলোডি জেনারেটর ব্যবহার করুন : অনেক অনলাইন টুল রয়েছে যা আপনার ইনপুটের উপর ভিত্তি করে মেলোডি তৈরি করতে পারে। আপনি যদি আটকে থাকেন তবে এটি শুরু করার একটি দুর্দান্ত উপায় হতে পারে।
  4. বিভিন্ন স্কেল এবং মোড চেষ্টা করুন : আপনার সঙ্গীতে বিভিন্ন মেজাজ এবং আবেগ তৈরি করতে বিভিন্ন স্কেল এবং মোড দিয়ে পরীক্ষা করুন। উদাহরণস্বরূপ, একটি ছোট স্কেল ব্যবহার করা একটি দুঃখজনক বা বিষণ্ণ শব্দ তৈরি করতে পারে, যখন একটি বড় স্কেল একটি সুখী বা উত্থানকারী শব্দ তৈরি করতে পারে।
  5. পুনরাবৃত্তি ব্যবহার করুন : পুনরাবৃত্তি একটি স্মরণীয় সুর তৈরির জন্য একটি কার্যকর হাতিয়ার হতে পারে। একতার অনুভূতি তৈরি করতে আপনার গান জুড়ে একটি নির্দিষ্ট সুর বা তাল পুনরাবৃত্তি করার চেষ্টা করুন।

মনে রাখবেন, সুর নিয়ে আসার কোন সঠিক বা ভুল উপায় নেই। আপনি আপনার জন্য কাজ করে এমন কিছু খুঁজে না পাওয়া পর্যন্ত পরীক্ষা এবং নতুন জিনিস চেষ্টা চালিয়ে যান।

আপনার সাথে অনুরণিত যে গান লিখুন

আপনার সাথে অনুরণিত গানের কথা লেখা খাঁটি এবং অর্থপূর্ণ সঙ্গীত তৈরির চাবিকাঠি। আপনার সাথে কথা বলার গান লেখার জন্য এখানে কিছু টিপস রয়েছে:

  1. হৃদয় থেকে লিখুন : আপনি যা জানেন এবং আপনি যা অনুভব করেন তা লিখুন। দুর্বল হতে ভয় পাবেন না এবং আপনার আবেগের সাথে খোলামেলা হবেন না। আপনার সততা এবং সত্যতা আপনার গানের মাধ্যমে উজ্জ্বল হবে.
  2. রূপক এবং চিত্রকল্প ব্যবহার করুন : রূপক এবং চিত্রকল্প আপনাকে জটিল আবেগ এবং অভিজ্ঞতাগুলিকে আরও প্রভাবশালী উপায়ে প্রকাশ করতে সাহায্য করতে পারে। আপনার শ্রোতাদের মনে একটি প্রাণবন্ত ছবি আঁকার জন্য বর্ণনামূলক ভাষা এবং শক্তিশালী চিত্র ব্যবহার করার চেষ্টা করুন।
  3. একটি গল্প বলুন : আপনার গানের কথা একটি গল্প বলা বা একটি বার্তা প্রদান করা উচিত। আপনি কী বলতে চান এবং কীভাবে আপনি আপনার গানের মাধ্যমে তা যোগাযোগ করতে পারেন সে সম্পর্কে চিন্তা করুন।
  4. একটি অনন্য দৃষ্টিকোণ ব্যবহার করুন : একটি অনন্য দৃষ্টিকোণ থেকে আপনার গানের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করুন। আপনি কিভাবে একটি সাধারণ থিম বা বিষয় আপনার নিজস্ব স্পিন যোগ করতে পারেন সম্পর্কে চিন্তা করুন.
  5. সম্পাদনা এবং সংশোধন করুন : একবার আপনি আপনার গান লিখলে, সেগুলি সংশোধন এবং সম্পাদনা করতে কিছু সময় নিন। সেগুলি জোরে পড়ুন, শব্দের সাথে খেলুন এবং নিশ্চিত করুন যে প্রতিটি লাইন গানের সামগ্রিক বার্তায় মূল্য যোগ করে।

মনে রাখবেন, গান লেখা একটি ব্যক্তিগত এবং বিষয়গত প্রক্রিয়া। আপনার সাথে যা অনুরণিত হয় তা অন্যদের সাথে অনুরণিত নাও হতে পারে এবং এটি ঠিক আছে। নিজের এবং আপনার অভিজ্ঞতার সাথে সত্য এমন গানের কথা লেখার দিকে মনোনিবেশ করুন। আপনি যখন আপনার লেখায় খাঁটি হন, তখন আপনার শ্রোতারা আপনার সঙ্গীতের সাথে সংযুক্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

সহজবোধ্য রাখো

এটিকে সহজ রাখা গান লেখার একটি গুরুত্বপূর্ণ নীতি। এখানে কিছু কারণ আছে কেন:

  1. মনে রাখা সহজ : সহজ সরল সুর এবং লিরিক্স সহ সাধারণ গান শ্রোতাদের মনে রাখা সহজ। এটি আপনার গানকে আরও জনপ্রিয় এবং স্মরণীয় হতে সাহায্য করতে পারে।
  2. আরও অ্যাক্সেসযোগ্য : সাধারণ গানগুলি প্রায়শই বিস্তৃত শ্রোতাদের কাছে আরও অ্যাক্সেসযোগ্য। একটি সহজ, আকর্ষণীয় সুরের প্রশংসা করার জন্য আপনাকে একজন সঙ্গীত বিশেষজ্ঞ হতে হবে না।
  3. আবেগের উপর ফোকাস করুন : সাধারণ গানগুলি আপনাকে জটিল সংগীত আয়োজনে আটকে না থেকে গানের আবেগ এবং বার্তার উপর ফোকাস করতে দেয়।
  4. নিরবধি গুণমান : সর্বজনীন থিম এবং আবেগ সহ সাধারণ গানগুলির একটি নিরবধি গুণ থাকতে পারে যা আগামী বছরের জন্য শ্রোতাদের সাথে অনুরণিত হতে পারে।
  5. সঞ্চালন করা সহজ : সাধারণ গানগুলি সঞ্চালন করা প্রায়শই সহজ হয়, আপনি একক বা ব্যান্ডের সাথে বাজছেন। এটি লাইভ পারফর্ম করা এবং আপনার দর্শকদের সাথে সংযোগ করা সহজ করে তুলতে পারে।

মনে রাখবেন, সরলতার অর্থ এই নয় যে আপনার গানটি বিরক্তিকর বা অমৌলিক হতে হবে। এটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলির উপর ফোকাস করা এবং আপনার বার্তাটি স্পষ্টভাবে আসে তা নিশ্চিত করা। বিভিন্ন সুর এবং গানের সাথে পরীক্ষা করতে ভয় পাবেন না, তবে সর্বদা সরলতা মনে রাখবেন।

অনুশীলন, অনুশীলন, অনুশীলন

আপনার গান লেখার দক্ষতা উন্নত করার জন্য অনুশীলন অপরিহার্য। কার্যকরভাবে অনুশীলন করার জন্য এখানে কিছু টিপস রয়েছে:

  1. এটি একটি অভ্যাস করুন : আপনার গান লেখার দক্ষতা অনুশীলন করার জন্য প্রতিদিন সময় আলাদা করুন। এমনকি দিনে মাত্র 10-15 মিনিট আপনার অগ্রগতিতে একটি বড় পার্থক্য আনতে পারে।
  2. বিভিন্ন শৈলীর সাথে পরীক্ষা করুন: সঙ্গীতের বিভিন্ন শৈলী এবং ঘরানার চেষ্টা করতে ভয় পাবেন না। এটি আপনাকে আপনার বাদ্যযন্ত্রের দিগন্ত প্রসারিত করতে এবং আপনার নিজস্ব অনন্য শৈলী খুঁজে পেতে সহায়তা করতে পারে।
  3. অন্যদের সাথে সহযোগিতা করুন : অন্যান্য সঙ্গীতজ্ঞ এবং গীতিকারদের সাথে সহযোগিতা করা শিখতে এবং বৃদ্ধির একটি দুর্দান্ত উপায় হতে পারে। আপনি নতুন কৌশল শিখতে পারেন, আপনার কাজ সম্পর্কে প্রতিক্রিয়া পেতে এবং আপনার সঙ্গীতে নতুন দৃষ্টিভঙ্গি অর্জন করতে পারেন।
  4. অন্যান্য গীতিকারদের অধ্যয়ন করুন : বিভিন্ন গীতিকারদের কাছ থেকে সঙ্গীত শুনুন এবং তাদের কৌশলগুলি অধ্যয়ন করুন। তাদের গানের সুর, কথা, গঠন এবং বিন্যাসের দিকে মনোযোগ দিন।
  5. একটি জার্নাল রাখুন : আপনার গান লেখার ধারণা, গান এবং সুরের একটি জার্নাল রাখুন। এটি আপনাকে সংগঠিত থাকতে এবং সময়ের সাথে সাথে আপনার অগ্রগতি ট্র্যাক করতে সহায়তা করতে পারে।

মনে রাখবেন, অনুশীলন একটি প্রক্রিয়া, এবং আপনার দক্ষতা বিকাশ করতে সময় লাগে। আপনি যত তাড়াতাড়ি চান তত দ্রুত অগ্রগতি না করলে হতাশ হবেন না। অনুশীলন চালিয়ে যান, এবং আপনি সময়ের সাথে উন্নতি দেখতে পাবেন।

অন্যান্য সঙ্গীতজ্ঞদের সাথে সহযোগিতা করুন

অন্যান্য সঙ্গীতজ্ঞদের সাথে সহযোগিতা করা আপনার গান লেখার দক্ষতা উন্নত করার এবং নতুন এবং অনন্য কিছু তৈরি করার একটি দুর্দান্ত উপায়। কার্যকরভাবে সহযোগিতা করার জন্য এখানে কিছু টিপস রয়েছে:

  1. সামঞ্জস্যপূর্ণ সঙ্গীতশিল্পীদের খুঁজুন : আপনার সঙ্গীত আগ্রহ এবং লক্ষ্য ভাগ করে এমন সঙ্গীতশিল্পীদের খুঁজুন। এটি একসাথে কাজ করা সহজ করে তুলবে এবং এমন কিছু তৈরি করবে যা আপনি উভয়ই উপভোগ করেন।
  2. আপনার ভূমিকা সংজ্ঞায়িত করুন : সহযোগিতায় প্রতিটি ব্যক্তির ভূমিকা সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নিন। কে লিখবে গানের কথা? কে লিখবে সুর? যন্ত্র বাজাবে কে? স্পষ্ট ভূমিকা এবং দায়িত্ব থাকা পরবর্তীতে বিভ্রান্তি এবং মতবিরোধ এড়াতে সাহায্য করতে পারে।
  3. প্রতিক্রিয়ার জন্য উন্মুক্ত থাকুন : আপনার সহযোগী(গুলি) থেকে প্রতিক্রিয়ার জন্য উন্মুক্ত থাকুন৷ তাদের ধারনা ও পরামর্শ শুনুন এবং আপস করতে ইচ্ছুক হন। এটি আপনাকে একটি ভাল শেষ পণ্য তৈরি করতে সহায়তা করতে পারে।
  4. কার্যকরভাবে যোগাযোগ করুন : ভালো যোগাযোগ যেকোনো সফল সহযোগিতার চাবিকাঠি। আপনার প্রত্যাশা, লক্ষ্য এবং সময়সীমা সম্পর্কে পরিষ্কার থাকুন এবং একে অপরকে আপনার অগ্রগতি সম্পর্কে আপডেট রাখুন।
  5. একে অপরের সৃজনশীল ইনপুটকে সম্মান করুন : প্রত্যেকেরই নিজস্ব সৃজনশীল শৈলী এবং দৃষ্টিভঙ্গি রয়েছে। আপনার সহযোগীর ধারণা এবং ইনপুটকে সম্মান করুন, এমনকি যদি এটি আপনার নিজের থেকে আলাদা হয়।

মনে রাখবেন, সহযোগিতা হল নতুন এবং অনন্য কিছু তৈরি করতে একসঙ্গে কাজ করা। নতুন ধারণার জন্য উন্মুক্ত হন এবং আপস করতে ইচ্ছুক হন, এবং আপনি সত্যিই বিশেষ কিছু তৈরি করবেন।

আপনার ধারণা রেকর্ড করুন

আপনার গান লেখার ধারণাগুলি রেকর্ড করা বিভিন্ন কারণে গুরুত্বপূর্ণ:

  1. আপনার অনুপ্রেরণা ক্যাপচার করা : গানের জন্য আইডিয়া যেকোন সময় এবং যেকোন জায়গায় আসতে পারে, তাই সেগুলিকে দ্রুত ক্যাপচার করার উপায় থাকা গুরুত্বপূর্ণ৷ আপনার ধারণাগুলি রেকর্ড করা নিশ্চিত করে যে আপনি সেগুলি ভুলে যাবেন না এবং সেগুলি নিয়ে কাজ করার জন্য আপনার কাছে আরও সময় থাকলে পরে সেগুলি পুনরায় দেখতে পারেন৷
  2. আপনার ধারনাগুলিকে পরিমার্জিত করা : আপনার ধারনাগুলি রেকর্ড করা আপনাকে আবার শুনতে এবং সময়ের সাথে সাথে সেগুলিকে পরিমার্জিত করতে দেয়৷ আপনি চূড়ান্ত পণ্যের সাথে খুশি না হওয়া পর্যন্ত আপনি আপনার রেকর্ডিংগুলি শুনতে এবং গানের সুর, গান বা কাঠামোতে পরিবর্তন করতে পারেন।
  3. আপনার ধারনা শেয়ার করা : আপনার ধারনা রেকর্ড করা অন্যদের সাথে শেয়ার করাও সহজ করে তোলে। প্রতিক্রিয়া এবং ধারণা পেতে আপনি আপনার রেকর্ডিংগুলি অন্যান্য সঙ্গীতজ্ঞ বা সহযোগীদের কাছে পাঠাতে পারেন।
  4. ডেমো তৈরি করা : একবার আপনার কাছে একটি শক্ত গানের ধারণা হয়ে গেলে, একটি ডেমো রেকর্ড করা আপনাকে এটিকে আরও পরিমার্জিত করতে সাহায্য করতে পারে। কোনটি সেরা কাজ করে তা দেখতে আপনি বিভিন্ন বিন্যাস, যন্ত্র এবং ভোকাল শৈলী নিয়ে পরীক্ষা করতে পারেন।
  5. একটি পোর্টফোলিও তৈরি করা : আপনার ধারণাগুলি রেকর্ড করা আপনাকে সময়ের সাথে সাথে আপনার কাজের একটি পোর্টফোলিও তৈরি করতে দেয়। সহযোগিতা বা সঞ্চালনের নতুন সুযোগ খোঁজার সময় এটি সহায়ক হতে পারে।

মনে রাখবেন, আপনার ধারণা রেকর্ড করার জন্য আপনার দামী যন্ত্রপাতির প্রয়োজন নেই। আপনি সাধারণ ডেমো বা ভয়েস মেমো রেকর্ড করতে আপনার ফোন বা কম্পিউটার ব্যবহার করতে পারেন। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল আপনার ধারণাগুলি ক্যাপচার করা যাতে আপনি সময়ের সাথে সাথে তাদের বিকাশ চালিয়ে যেতে পারেন।

392 Views
No Comments
Forward Messenger
3
No comments to “গান রচনা করার জন্য 7 টিপস।”